অজানা ও অবাক – পর্ব ৭ (মানব দেহ ২)

আমরা আমাদের দেহের অনেক কথাই জানি তারপরও আবার এমন কিছু আছে যা আমরা অনেকেই জানি না। এই না জানা কিছু কথা জেনে নিন – 


  • জন্মানোর সময় মানুষের মস্তিষ্কের আয়তন দেহের এক চতুর্থাংশ থাকলেও পূর্ণবয়স্ক মানুষের মাথার আয়তন দাড়ায় দেহের মোট আয়তনের আট ভাগের এক ভাগ।
  • চোখের অশ্রুগ্রন্থি থেকে যে তরল পদার্থ ক্ষরিত হয় তারই নাম অশ্রু। এর উৎপত্তি স্থল হলো চোখের কনে অবস্থিত ছোট আকারের বিন্দুর মতো ল্যাক্রাইমাল গ্রন্থি (Lacrymal Gland)
  • দেহে মেলানিন (Melanin) নামক রঞ্জক পদার্থের উপস্থিতির কারণে মানুষের দেহের রং কালো হয়। যার দেহে মেলানিনের পরিমাণ যত বেশি তার দেহের রং ততো বেশি কালো হয়।

Continue reading

টোটাল গ্রাফিক্স ডিজাইন (পর্ব – ২)

Tutorial গুলো CS-5  দিয়ে করা তাই পড়ার সাথে সাথে CS-5 দিয়ে Practically কাজ করলে আশা করি তাড়াতাড়ি শিখতে পারবেন। এটি একটি ধারাবাহিক Tutorial তাই টোটাল গ্রাফিক্স ডিজাইন শিখতে মৌমাছির সাথেই থাকুন।

গ্রাফিক্স ডিজাইন এর পূর্বের পর্ব গুলো Categories এর Graphics Design থেকে দেখুন।

Topics: Type Tool & Shape Tool

Continue reading

টোটাল গ্রাফিক্স ডিজাইন (পর্ব – ১)

যারা Photoshop শুধু নাম জানেন এর ব্যাপারে আর কিছুই জানেন না তারা মৌমাছি তে “টোটাল গ্রাফিক্স ডিজাইন” এর tutorial গুলো পড়লে আশা করি নিজেতো কাজ করতে পারবেনই সাথে অন্যকেও শিখাতে পারবেন। এখানে Photoshop এর Latest Version CS-5 এর উপর Tutorial গুলো লেখা হবে। কারণ এটা Photoshop এর সর্বশেষ Version আর এটা অন্য Version থেকে অনেক Easy আর অনেক বেশী সুবিধা সম্পন্ন।

Photoshop হচ্ছে Photo Editing দুনিয়ার রাজা। মোট কথা এর মাধ্যমে Photo Editing এর এমন কিছু নেই যে করা যায় না। এর সুবিধা, দক্ষতা, কর্মের পরিসর বর্ণনা করতে গেলে হয়তো দিন পার হয়ে যাবে। তাই ঐ দিকে কথা না বাড়িয়ে আসুন Class শুরু করি।এর হ্যাঁ Tutorial গুলো পড়ার সাথে সাথে CS-5 দিয়ে Practically কাজ করলে আশা করি তাড়াতাড়ি শিখতে পারবেন।

গ্রাফিক্স ডিজাইন এর সবগুলো পর্ব গুলো Categories এর Graphics Design থেকে দেখুন।

Continue reading

অজানা ও অবাক পর্ব – ৬ (বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি)

আমরা আমাদের বিশ্বের অনেক কথাই জানি তারপরও আবার এমন কিছু আছে যা আমরা অনেকেই জানি না। এই না জানা কিছু কথা জেনে নিন –

  • বিজ্ঞানীরা কৃত্তিমভাবে সর্বচ্চ যে তাপমাত্রা উৎপাদন করতে পেরেছে তা হলো ৯২,০০,০০,০০০ ডিগ্রী ফারেনহাইট বা ৫১,১০,০০,০০০ ডিগ্রী সেলসিয়াস। আর এই তাপমাত্রা উৎপাদন করা হয়েছিল মার্কিন যুক্তরাষ্টের নিউ জাসি অঙ্গরাজ্যের প্রিন্সটনের টোকামাক ফিউশন টেস্ট রিঅ্যাক্টয়ে (Tokamak fusion Test Reactor)
  • বিশ্বের সবচেয়ে দ্রুত গতিসম্পন্ন কম্পিউটার হলো CRAY Y-MP C90 Super Computer . যাতে দুই গিগাবাইট কেন্দ্রীয় স্মৃতি এবং ১৬ টি প্যারালাল কেন্দ্রীয় প্রসেসর রয়েছে।
  • সুপার গ্লু (Super Glue) নামে পরিচিত আঠা আবিষ্কৃত হয় দুর্ঘটনাক্রমে। গবেষকরা আসলে এক ধরনের অপটিক্যাল আবরক তৈরী করার চেষ্টা করেছিলেন। সায়ানো – এক্রিলেট (Cyano – Acrylate) নামের একধরনের রাসায়নিক পদার্থ এই কাজে ব্যবহার করে তারা দুটি প্রিজমকে একসাথে যুক্ত করে দিলেন। কিন্তু পরে আটকানো প্রিজমকে আলাদা করতে পারে নি। আভাবেই তৈরী হয় সুপার গ্লু নামের আঠা।
  • কার্বন-ডাই-অস্কাইড সাধারনত গ্যাস অবস্থায় থাকে। এই গ্যাসটিকে চাপ প্রয়োগ করে কঠিন করা হলে তা শুষ্ক বরফে রূপান্তরিত হয়।

Continue reading

অজানা ও অবাক পর্ব – ৫ (মিশ্রণ)

আমরা আমাদের বিশ্বের অনেক কথাই জানি তারপরও আবার এমন কিছু আছে যা আমরা অনেকেই জানি না। এই না জানা কিছু কথা জেনে নিন –

*ইংল্যান্ডের কাছাকাছি গ্রিনিচ গ্রামের সৌর সময় রেখাকে মূল সময় ধরে নিয়ে বিশ্বের অধিকাংশ দেশে সময় নির্ধারণ করা হয়। একে গ্রিনিচ মিন টাইম বা গ্রিনিচ গড় সময় বলে।

*পৃথিবীর সবচেয়ে মূল্যবান পদার্থ হলো হীরা(Diamond) এটি প্রকৃতপক্ষে কার্বন বা অঙ্গারের এক বিশেষ রূপান্তরিত অবস্থা। কঠিন চাপ বা অত্যাধিক তাপে কার্বন বা অঙ্গার স্বচ্ছ, বর্ণহীন হীরায় রূপান্তরিত হয়।

*বিশ্বের প্রথম বারের মতো ছাতা ব্যবহার করা হয় ১৭৫৬ সালে। জোনাস হ্যানওয়ে (Jonas Hanway) নামে এক ভদ্রলোক লন্ডন শহরে প্রথমবারের মতো চামড়া দিয়ে তৈরী এক ধরনের ছাতা ব্যবহার করেন।

* পৃথিবীর কেন্দ্রের তাপমাত্রা ৫৫০০সেলসিয়াস বলে ধারনা করা হয়। এতো উষ্ণ হওয়ার করনে সেখানে সব বস্তুই আগুনের মতো উষ্ণ থাকে।

Continue reading

অজানা ও অবাক পর্ব – ৪ (মিশ্রণ)

আমরা আমাদের বিশ্বের অনেক কথাই জানি তারপরও আবার এমন কিছু আছে যা আমরা অনেকেই জানি না। এই না জানা কিছু কথা জেনে নিন –

  • খাঁটি সোনা বলতে আমরা ২২ ক্যারাট সোনাকে বুঝি। কিন্তু এটিও খাঁটি নয়। এতে সামান্য কিছু পরিমানে তামা থাকে। খাঁটি সোনা এতোটাই নরম যে হাতে ধরলে সেটি বাঁকা হয়ে যায়।
  • সূর্যের কেন্দ্রের তাপমাত্রা প্রায় ২৭০,০০,০০০ ডিগ্রী বা ১,৫০,০০,০০০ ডিগ্রী সেলসিয়াস।
  • উইলিয়াম শেক্সপিয়ার তার সাহিত্য কর্মের মাধ্যমে ইংরেজি ভাষায় ১৭০০ টি নতুন শব্দ সংযোজন করেছিলেন।
  • একটি অ্যালুমিনিয়াম ক্যান রিসাইকেল করার মাধ্যমে যে শক্তি সঞ্চয় করা যায়, টা দিয়ে একটি টেলিভিশন ৩ ঘণ্টা পর্যন্ত চালিয়ে রাখা যায়।

Continue reading

অজানা ও অবাক – পর্ব ৩ (প্রাণী জগত)

আমরা প্রাণী জগতের অনেক কথাই জানি তারপরও আবার এমন কিছু আছে যা আমরা অনেকেই জানি না। এই না জানা কিছু কথা জেনে নিন – 

  • কুকুরের নাকে প্রায় ৬০,০০০ সংবেদী স্নায়ু থাকে।
  • বাদুড়ের পায়ের হাড় খুব দুর্বল তাই তারা হাঁটতে পারে না।
  • এমু পাখি ও ক্যাঙ্গারু কখনোই পেছন দিকে হাঁটতে পারে না।
  •  অষ্ট্রিচ বা উটপাখির চোখ তার মস্তিস্কের চেয়ে বড়। পাখিদের মধ্যে এতো বড় আকারের চোখ বিরল।
  • মানুষ ছাড়া শিম্পাঞ্জিই একমাত্র প্রানী যারা আয়নায় নিজের চেহারা দেখে চিনতে পারে।

Continue reading

অজানা ও অবাক – পর্ব ২ (প্রাণী জগত)

আমরা প্রাণী জগতের অনেক কথাই জানি তারপরও আবার এমন কিছু আছে যা আমরা অনেকেই জানি না। এই না জানা কিছু কথা জেনে নিন – 

  • জলহস্তী জলে ডুবে থাকা অবস্থাতেও দেখতে, শুনতে ও নিঃশ্বাস গ্রহণ ও ত্যাগ করতে পারে।
  • পাখিরা যতই পরিশ্রম করুক তাদের কখনো ঘাম হয় না।
  • প্রাণীজগতে দেহের তুলনায় সবচেয়ে বড় আকারের মস্তিস্কযুক্ত প্রাণী হল পিঁপড়া।
  • পিঁপড়া কখনোই ঘুমায় না, দিন রাত ২৪ ঘণ্টাই এরা কোন না কোন কাজে নিজেদের যুক্ত রাখে।
  • গরিলা ঘুমানর সময় কোন কিছুর সাথে পা লাগিয়ে রাখতে পছন্দ করে।

Continue reading

অজানা ও অবাক – পর্ব ১ (মানব দেহ)

আমরা আমাদের দেহের অঙ্গ-প্রত্যঙ্গের অনেক কথাই জানি তারপরও আবার এমন কিছু আছে যা আমরা অনেকেই জানি না। এই না জানা কিছু কথা জেনে নিন – 

  •  সাধারনত পুরুষের তুলনায় নারীর মস্তিষ্ক প্রায় ১৫০ ঘন সেঃ মিঃ কম বা ছোট হয়।
  •  ডান হাতি মানুষেরা বাম হাতি মানুষের চেয়ে কমপক্ষে ৯ বছর বেশী বাঁচে।
  •  দেহের কোন স্থানে ব্যথা লাগলে সেখানে চর্বি জাতীয় কিছু মেখে দিলে ব্যথা কমে যায়।
  •  পৃথিবীতে বিভিন্ন ধরনের মানুষ দেখা গেলেও আসলে জাত হিসাবে মানুষকে মাত্র ৪টি ভাগে ভাগ করা যায়। যথাঃ ককেশয়ড, নিগোয়ড, মঙ্গলয়ড ও ইউরোপিয়রড।

Continue reading

প্রযুক্তির টাইম মেশিন [পর্ব ১] :: কম্পিউটারের ক্ষতিকর প্রোগ্রাম(VIRUS,WORM) এর ইতিবিত্ত ।

কম্পিউটার ব্যবহার করি কিন্তু ক্ষতিকর প্রোগ্রাম VIRUS,WORM এর নাম জানি না বা VIRUS,WERM এর যন্ত্রণা ভোগ করি নাই এমন মানুষ কম আছে। আবার কিছু কিছু মানুষ আছে যারা VIRUS এর নাম শুনলে এতো ভয় পায় যে কম্পিউটারকে গান শুনা,ছবি দেখা, ও ছোট-খাটো কাজ ব্যতীত অন্য কাজই করে না। কিন্তু বেশীর ভাগ মানুষই এই VIRUS সম্পর্কে তেমন কিছু জানে না। আসা করি এই লেখাটি পড়লে VRIUS সম্পর্কে অনেক ধারনা পাবেন। Continue reading